নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ২০২১ (৯ম)

নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ২০২১ (৯ম)


মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ২০২১ এ তোমাদের নিমন্ত্রণ জানাই। তোমরা যারা ৯ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট খুঁজছিলে তাদের জন্য এটা ভালো পোস্ট হতে পারে। 

নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর লেখা শুরু করার আগে তোমদের এই লেখাটি সম্পূর্ণ পড়ে নেওয়া উচিত। কারণ অনেকেই উত্তর লিখার সময় অনেক ভূল করে। সেই ভূলগুলো কাটিয়ে ওঠার জন্য পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যযন্ত পড়া উচিত।

নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ২০২১


৬ষ্ঠ সপ্তাহের তথ্য ও প্রযুক্তি এসাইনমেন্টটি লিখতে তোমাদের ৯ম শ্রেণীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ১ম অধ্যায় পড়তে হবে। সেই জন্য তোমাদের প্রয়োজন হবে নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বই pdf । সেখান থেকে তোমরা সাহয্য নিতে পারো যা তোমাদের প্রশ্নের নির্দেশনা অংশে বলা আছে।

তোমাদের তথ্য ও প্রযুক্তি বইয়ের প্রথম অধ্যায়টি হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং আমাদের বাংলাদেশ। এই অধ্যায়টি তোমরা এসাইনমেন্ট নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বই থেকে পাবে। সেই সাথে নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি গাইড থেকে সাহায্য নিতে পারো।

আরো দেখুনঃ

 


৬ষ্ঠ  সপ্তাহ ২০২১ নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট প্রশ্ন


৯ম শ্রেণির তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ২০২১৯ম শ্রেণির তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ৬ষ্ঠ সপ্তাহ ২০২১


উপরের নবম শ্রেণির ১ম অ্যাসাইনমেন্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রশ্ন থেকে তোমরা দেখতে পাচ্ছো তোমাদের কি লিখতে হবে। এখানে তোমাদের করোনকালীন সময়ে শিক্ষাক্ষেত্রে ই লার্নিং এর ভূমিকা দেখিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করতে হবে। সেখানে তোমদের প্ররম্ভিক অংশ, প্রধান অংশ, ও পরিশিষ্ট এই তিনটি অংশে প্রতিবেদনটি লিখতে হবে। প্রারম্ভিক অংশে, আবার মূল শিরোনাম, প্রাপকের নাম ঠিকানা দিতে হবে। প্রধান অংশে বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত লিখতে হবে এবং পরিশিষ্টে তথ্য সংগ্রহের উৎসগুলো দিতে হবে।

নবম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর


অ্যাসাইনমেন্ট  শুরু

প্রতিবেদনের বিষয়ঃ বর্তমানে কোভিড-১৯ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শিক্ষা কাযক্রম চলমান রাখায় ই-লানিং এর ভুমিকা!

প্রতিবেদন তৈরির তারিখঃ ০৮ জুন,২০২১

প্রতিবেদকের নাম ও ঠিকানাঃ  নাঈম মিয়া, মেহেরপুর

প্রতিবেদন প্রাপকের নাম ও ঠিকানাঃ মাসুদ রানা


বতমান কোভিড-১৯ উদ্ভূত পরাস্থাতিতে শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখায় ই-লার্নিং এর ভূমিকা


ভূমিকাঃ আমরা জানি এটা একুশ শতকের যুগ। বর্তমান এই আধুনিক বিশ্বায়নের যুগে তথ্যপ্রযুক্তি ভূমিকা অনস্বীকার্য। বর্তমান বিশ্বের দিকে তাকালেই বুঝতে পারা যায যে আধুনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি কতটা গভীরভাবে জড়িয়ে আছে। আমরা আজকের যে সভ্যতার সামনে দাড়িয়ে আছি তার অনেকটাই সার্থক হয়েছে তথ্যও যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে বর্তমান সময়ে তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও এর ছোয়া লেগেছে। যোগাযোগের আধুনিকায়ন এবং ইন্টারনেটের বদৌলতে শুরু হয়েছে ই-লার্নিং। ই-লার্নিং হল ইলেকট্রনিক লার্নিং অর্থাৎ ইন্টারনেট ব্যবহার করে কিংবা ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক, টেলিভিশন, রেডিও, ভিডিও ইত্যাদির মাধ্যমে শিক্ষা প্রদান। ই-লার্নিং হলো একটি আধুনিক পদ্ধতিতে পাঠদানের প্রক্রিয়া।

কোভিড-১৯ এর কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে স্বাভাবিক শিক্ষা কাযক্রম বন্ধ ছিলো, অনেকে এটাকে সু-দৃষ্টিতে না দেখলেও করোনাকালে স্বাভাবিক শ্রেণী কার্যক্রম চালু না রাখার যৌক্তিকতা রয়েছে। কারন উন্নত দেশগুলো যেখানে করোনার থাবায় কোণঠাসা সেখানে আমাদের জনবহুল দেশ অনেকটাই বিপদের মুখে। যদি শ্রেণী কার্যক্রম চালু রাখা হতো তাহলে দেশের বর্তমান করোনা পরিস্থির চিত্র আরও ভয়াবহ হত। আজকের শিক্ষার্থীরাই আমাদের ভবিষ্যৎ। আজকের শিক্ষার্থীরাই সারা বিশ্বকে দেখিয়ে দিবে আমারা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে কতো উন্নত। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে শ্রেণী কার্যক্রম চালু না রাখার সিদ্ধান্ত খুবই যৌক্তিকসম্পন্ন এবং যুগোপযুগী। তাছাড়া ই-লার্নিং এর মাধ্যমে ঘরে বসেই পাঠদানের সুযোগ যেখানে রয়েছে সেখানে শ্রেণী কার্যক্রম চালুর মানে হুল তথ্য ও প্রযুক্তিকে নিরাসা করা। তাছাড়া সবার আগে জীবন, জীবিত থাকলে শিক্ষা হবে, প্রতিষ্ঠিত হওয়া যাবে। শিক্ষাই পারে দেশকে, জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে, সেখানে শিক্ষাব্যবস্থাই আজ বিপাকে। যদিও অনলাইন শিক্ষার মাধ্যমে শিক্ষাদান কার্যক্রম চলছে তবুও এটি কতটা ফলপ্রসূ হবে তা নিয়ে সকলেরই প্রশ্ন রয়েছে। 

কোভিড-১৯ এর ফলে গত কয়েক মাস ধরে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় অনলাইনের মাধ্যমে শিক্ষাদানের সিদ্ধা গ্রহণ করা হয়। অনিশ্চিত এই পরিস্থিতিতে অনলাইন কার্যক্রম চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার ও ইউজিসি। ইতিমধ্যে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে শিক্ষার্থীরা পরিচিত হচ্ছে নতুন এক অধ্যায়ের সাথে প্র্যাকটিকেল ক্লাস, পরীক্ষা, গতানুগতিক শিক্ষা থেকে দূরে থেকে নতুন পদ্ধতি কতটুকু উপকার করছে তা নিয়ে মতভেদ রয়েছে অনেকেরই মনে। অনলাইন ক্লাস শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কাছে নতুন বিষয় যা বৈশ্বিক মহামারির কারণে সকলের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। মূলত শিক্ষার্থীদের অনলাইন টিউটোরিয়াল বা জুম মিটিংয়ের মাধ্যমে ক্লাস নেওয়ার ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে ও নিয়মিত প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে এই অনলাইন ক্লাসের পাঠদান গ্রহণের ক্ষেত্রেও অনীহা রয়েছে অনেকের মাঝে। অনলাইন ক্লাসের মূল গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো শিক্ষাব্যবস্থা যেন এই মহামারিতে মুখ থুবড়ে না পড়ে- যা দেশের জন্য অতি জরুরি। 

আমার স্কুলে করোনা মহামারির কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার কিছুদিন পরেই অনলাইনে ক্লাস শুরু হয়েছে। জুম এপলিকেশনের মাধ্যমে শিক্ষকরা ক্লাস নেন। আমাদের বাড়ির কাজ দেন। আবার পরের ক্লাসে পড়া ধরেন। জুম আপসের মাধ্যমে আমরা শিক্ষকদের কিছু না বুঝলে সরাসরি প্রশ্ন করতে পারি। শিক্ষকরাও আমাদের প্রশ্ন বুঝিয়ে দেন। এছাড়াও আমাদের পরীক্ষা নেওয়া হয়। ফেইসবুক গ্রুপের মাধ্যমে আমরা প্রশ্ন পেয়ে আমাদের খাতায় উত্তর লিখে ছবি তুলে গ্রুপে জমা দেই। এভাবেই আমার স্কুলে অনলাইন কার্যক্রম চলে। 


আধুনিক প্রযুক্তি যে শুধু জীবন যাত্রার মানকেই উন্নত করছে তা কিন্তু নয়  মানুষের দক্ষতাকেও উন্নত করেছে যেমন:

  • ই-লার্নিং এর মাধ্যমে যে কেউ খুব কম সময়ে তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতা অর্জন করতে পারে।
  • খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভার্চুয়াল ক্লাসে অংশ নিয়ে নিজের পছন্দের বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করা যায়।
  • নিজের সীমিত জ্ঞানের পরিধিকে ই- লার্নিং এর মাধ্যমে আরো বিস্তৃত করা যায়।

  • একজন শিক্ষার্থীদে প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি অন্যান্য জ্ঞান অর্জন করলে সে নিজেকে দক্ষ ও জ্ঞানি করে তুলতে পারে। 

শিক্ষার আলোকে ছড়িয়ে দিতে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেমন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ঠিক সমপরিমাণ ভূমিকা রাখে ই-লার্নিং। যেখানে আধুনিক প্রযুক্তি সর্বস্তরে বিরাজ করছে সেখানে শিক্ষাকে ডিজিটালাইজেশনে রূপান্তর করতে ই-লার্নিং এর আরো প্রসার বৃদ্ধি করা প্রয়য়োজন। ইলার্নিং এর মাধ্যমে একজন ব্যক্তি নিজেকে বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ করে গড়ে তুলতে পারে তাছাড়া ই-লার্নিং এর মাধ্যমে যে কেউ চাইলে সেই দক্ষতা কাজে লাগিয়ে যেমন অর্থ উপার্জন করতে পারে ঠিক তেমনি বিদেশ থেকে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করতে পারে। তাই ই-লার্নিং কে গুরুত্ব দিয়ে আমাদের দেশের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিকে আরো উন্নত করা প্রয়োজন।

তথ্য সূত্রঃ 

  • তথ্য ও প্রযুক্তি বই (নবম-দশম শ্রেণি)
  • https://www.unicef.org/bangladesh
  • https://www.prothomalo.com/education/higher-education/

অ্যাসাইনমেন্ট  শেষ


আরো দেখুনঃ

 

উপরের নমুনা উত্তরটি তোমাদের মূল্যায়নে অতি উত্তম পেতে সাহায্য করবে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট লেখার তোমদের আরো একটি বিষয়ের উপর উপর এসাইনমেন্ট লিখতে হবে। যদি তোমরা মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী হও তবে তোমাদের বাংলাদশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা এসাইনমেন্টটি লিখতে হবে। বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের ৬ষ্ঠ সপ্তাহ পদার্থ বিজ্ঞান এসাইনমেন্টটি লিখতে হবে। এবং বাণিজ্য বিভাগের শিক্ষার্থীদের ৬ষ্ঠ সপ্তাহ হিসাব বিজ্ঞান এসাইনমেন্টটি লিখতে হবে।

৯ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ২০২১

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অনুরোধ করবো তোমরা আমাদের ফেজবুক পেজে লাইক দিয়ে রাখো তাহলে তোমরা সকল এসাইনমেন্ট কোনো ঝামেলা ছাড়াই পেয়ে যাবে। অথবা আমাদের ফেজবুক গ্রুপে জয়েন করতে পারো সেখানেও সকল এসাইনমেন্টের উত্তর লিংক দেওয়া হয়। তোমাদের কষ্ট করে খুজে বেড়ানো লাগবেনা। নিচে আমাদের সকল প্রকার সোসাল লিংক দেওয়া হলো

আমাদের ইউটিউব লিংক
ফেজবুক পেজ (সমস্যা ও সমাধান)
assignment all class (6-9)📝📝